শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১, ০৭:৫২ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
দশম শ্রেণির ছাত্রী নিজের বাল্যবিয়ে বিয়ে বন্ধ করলো

দশম শ্রেণির ছাত্রী নিজের বাল্যবিয়ে বিয়ে বন্ধ করলো

মো.হাসমত উল্ল্যাহ,লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ

লালমনিরহাটের হাতিবান্ধা উপজেলার সিঙ্গিমারী ইউনিয়নের উত্তর ধুবনীগ্রামের মোঃ সাইরুদ্দিনের মেয়ে দশম শ্রেনীর ছাত্রী নিজের বাল্যবিয়ে বন্ধ করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সহযোগীতায়। 

মেয়ের ইচ্ছার বিরুদ্ধে বাবা জোর পূর্বক বাল্য বিয়ে দেয়ার চেষ্টা করলে দশম শ্রেনী ছাত্রী শাহিনা আক্তার বাড়ি থেকে পালিয়ে বান্ধবীর বাড়িতে আশ্রয় নেয়।

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ শ্রেণীর ছাত্রী ও উত্তর ধুবনী গ্রামের সাইরুদ্দিনের, মেয়ে শাহিনা আক্তারকে (৪সেপ্টেম্বর)২০২০ইং শুক্রবার রাতে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর পূর্বক বাল্য বিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেন তার বাবা-মা। উপায় না পেয়ে শাহিনা বাড়ি থেকে পালিয়ে তার এক বান্ধবীর বাড়িতে আশ্রয় নেয়। ওই বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেতে হাতীবান্ধার ইউএনও সামিউল আমিনকে, ও হাতীবান্ধা থানার ওসি এরশাদুল আলমকে, ফোন করে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেতে সহযোগিতা কামনা করেন শাহিনা আক্তার।

(৬সেপ্টেম্বর)২০২৯ইং রোববার সকালে ইউএনও সামিউল আমিন হাতীবান্ধা থানার ওসি এরশাদুল আলমকে সাথে নিয়ে প্রথমে শাহিনা আক্তারকে তার বান্ধবীর বাড়ি থেকে উদ্ধার করেন। পরে ইউএনও নিজ গাড়ীতে করে শাহিনা আক্তারকে সাথে নিয়ে তার বাড়িতে হাজির হয়। এ সময় তার বাবা সাইরুদ্দিনের কাছ থেকে একটি  মুচলেকা লিখে নিয়ে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য আইয়ুব আলীর জিম্মায় শাহিনা আক্তারকে তুলে দেয়।

হাতীবান্ধার ইউএনও সামিউল আমিন বলেন, রাতে খবর পাওয়া মাত্র আমি ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষকের সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছি। সকালে মেয়েকে তার বান্ধবীর বাড়ি থেকে উদ্ধার করে নিজ বাড়িতে নিয়ে গিয়ে বাল্যবিয়ের  সম্পর্কে বাবা মায়ের সাথে কথা বলে শাহিনাকে তাদের কাছে দিয়ে এসেছি। শাহিনার বাবা মা মুচলেকা দিয়েছেন ১৮ বছরের আগে মেয়ের বিয়ে দিবেন না।

মোঃহাসমত উল্ল্যাহ।।

Please Share This Post in Your Social Media






© natunbazar24.net কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD