রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ০৬:২৮ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
নিমাঞ্চলে জলবদ্ধতা পঞ্চগড়ে মৌসুমের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত

নিমাঞ্চলে জলবদ্ধতা পঞ্চগড়ে মৌসুমের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত

মোঃ বাবুল হোসেন পঞ্চগড় জেলা প্রতিনিধি : বর্ষা মৌসুমের শেষে এসে সর্বোচ্চ পরিমাণ বৃষ্টিপাত হয়েছে পঞ্চগড়ে। বুধবার (২৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে পূর্ববর্তী ২৪ ঘন্টায় মৌসুমের সর্বোচ্চ ২১৭ দশমিক ৭ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে তেঁতুলিয়া আবহাওয়া অফিস। টানা বৃষ্টিতে সর্বত্র সৃষ্টি হয়েছে জলাবদ্ধতার। চরম দুর্ভোগে পড়েছে মানুষজন। পানি নিষ্কাশনের সুব্যবস্থা না থাকায় বাড়িঘরে উঠেছে পানি। বাড়িতে পানি জমে থাকায় অনেকে রান্নার কাজ করতে পারেনি। এ অবস্থা আরও তিনদিন থাকতে পারে বলে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে। এদিকে জেলার উত্তরে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে অতি বৃষ্টির কারণে পঞ্চগড় জেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত সকল নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। তবে এখনও বিপদসীমার নীচ দিয়েই প্রবাহিত হচ্ছে সব নদ-নদীর পানি। মঙ্গলবার দিবাগত রাত থেকে বৃষ্টি শুরু হলেও বুধবার সকাল ৮টা থেকে শুরু হয় অতি ভারী বৃষ্টিপাত, যা চলে বেলা ১টা পর্যন্ত। ভারী বৃষ্টির কারণে সর্বত্র সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতার। কোন কোন জায়গায় পানি সরে গেলেও অনেক স্থানে পানি সরে যাওয়ার সুব্যবস্থা না থাকার কারণে ডুবে যেতে থাকে রাস্তা-ঘাট, বাড়ি-ঘর। বিশেষ করে, পঞ্চগড় পৌর এলাকার অনেক স্থানে জলাবদ্ধতায় মানুষজন চরম কষ্টে আছে বানিয়াপট্টি থেকে কামাতপাড়া সড়কের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে পানি। রাস্তার ওপর হাটু পানি লেগে থাকায় ময়লা পানি দিয়েই মানুষকে রাস্তায় চলাচল করতে হচ্ছে। পঞ্চগড় সদর উপজেলার সদর ইউনিয়নের বলেয়াপাড়া গ্রামের অর্ধ-শতাধিক বাড়িতে পানি উঠায় কেউ দিনের বেলা রান্নার কাজ করতে পারেনি। ওই গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল হাকিম জানান, সামান্য বৃষ্টিতেই আমাদের বাড়িতে পানি উঠছে। পানি সরে যাওয়ার জন্য রাস্তার ওপর অনেক বছর আগে একটি রিং-কালভার্ট তৈরি করা হয়। কিন্তু রিং দিয়ে পানি দ্রুত সরে না যাওয়ায় দীর্ঘ সময় আমাদের জলাবদ্ধতায় ভুগতে হচ্ছে। রিং-কালভার্ট ভেঙ্গে এখানে বক্স-কালভার্ট নির্মাণ করা হলে জলাবদ্ধতা আর থাকবে না বলে তিনি জানান। ,পঞ্চগড় পৌরসভার মেয়র জানান অতিবৃষ্টির কারণে ধারণ ক্ষমতার চেয়ে বেশি পানি ড্রেন দিয়ে যেতে না পারার কারণে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া অসচেতনতায় অনেকে বাড়িঘরের ময়লা আবর্জনা ড্রেনে ফেলার কারণে পানিপ্রবাহ ব্যহত হচ্ছে। তাই নিয়মিত পরিষ্কার করার পরও বৃষ্টিতে ড্রেনের পানি উপচে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। আমরা ড্রেন পরিষ্কার করে পানি সরিয়ে নেয়ার কাজ অব্যাহত রেখেছি। তেঁতুলিয়া আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম জানান, বুধবার দুপুর থেকে পূর্ববর্তী ২৪ ঘন্টায় ২১৭ দশমিক ৭ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে, যা এ মৌসুমের সর্বোচ্চ। আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর দুপুর পর্যন্ত বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস রয়েছে বলে তিনি জানান।

মো.বাবুল হোসেন পঞ্চগড় জেলা প্রতিনিধি।

Please Share This Post in Your Social Media






© natunbazar24.net কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD